শিল্পী পরিচয়ের বাইরে নতুন পরিচয়ে ন্য‍ান্সি

প্রকাশিত: ৯:৫৮ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২, ২০২০
সুকণ্ঠী গায়িকা নাজমুস মুনীরা ন্য‍ান্সি। সিনেমা ও অডিওতে এখনো নিয়মিত গাইছেন তিনি। শিল্পী পরিচয়ের বাইরে এবার আরও এক নতুন পরিচয়ে সামনে আসতে চলেছেন এই গায়িকা। এবার কথাবন্ধু ন্য‍ান্সিকে পেতে চলেছে তার ভক্তরা।নতুন খবর হলো, গানের ভুবনের ন্যান্সি এবার হাজির হতে যাচ্ছেন আরজে হয়ে। রেডিও ক্যাপিটাল এফএম ৯৪.৮-এর সঙ্গে দুই বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন ন্যান্সি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ক্যাপিটাল এফএমের সেলস হেড শুভেন্দু সাহা, নাফিজ রেদওয়ান শান্ত, আরজে জাহান অরণ্য প্রমুখ।

ক্যাপিটাল এফএমে ন্যান্সি উপস্থাপিত অনুষ্ঠানটির নাম ‘লাইভ উইথ ন্যািস’। এখানে গান নিয়ে কথা বলবেন ন্যান্সি। নতুন নতুন অতিথি নিয়ে আড্ডা দেবেন শ্রোতাদের সঙ্গে।

এ প্রসঙ্গে ন্যান্সি বলেন, ‘আমি শুধুই গান গাই, সব সময় কথা বলি অনেক কম। রেডিও ক্যাপিটাল আমাকে যখন এই অনুষ্ঠানটি করার প্রস্তাব দেয়, আমি প্রথমে দ্বিধায় পড়ে যাই। পরবর্তী সময়ে অনুষ্ঠান সম্পর্কে জেনে আমার অনেক ভালো লাগে এবং তাদের হ্যাঁ বলে দিলাম। গান নিয়ে কথা বলতে আমার ভালোই লাগে। আশা করছি, অনুষ্ঠানটি শ্রোতাদের ভালো লাগবে।’

কনসার্ট, টিভি প্রোগ্রাম, চলচ্চিত্র ও মৌলিক গান—সবখানেই সরব উপস্থিতি তার। গত বছর তিনি বেশ কিছু গান দিয়ে আলোচনায় ছিলেন।

বর্তমানে কনসার্টে কেমন সময় দিচ্ছেন এমন প্রশ্নের জবাবে এই শিল্পী বলেন, ‘শহর থেকে শুরু করে গ্রামের যে ধরনের কনসার্ট বোঝায়, আমি ওই ধরনের কনসার্ট করি না। ঢাকার বাইরে গ্রামের কনসার্টগুলোতে আমার একদম যাওয়া হয় না। ওই সব অনুষ্ঠানে ফোক ঘরানার গানই মানানসই। আমি যে ধাঁচের গান করি, তা ওই পরিবেশে মানায় না। পরিতৃপ্তির একটি বিষয় থাকে। শুধু টাকার জন্য গাইলেই তো হবে না। শিল্পী হিসেবে আমি ওখানে গিয়ে ফোক গাইলাম কিংবা মমতাজের একটি গান করার চেষ্টা করলাম। তাতে হয়তো দর্শক-শ্রোতা কিন্তু আমাকে সেভাবে গ্রহণ করবেন না। তাই প্রস্তাব এলেও তা ফিরিয়ে দিতে হয়। সারা বছর সাধারণত করপোরেট ধরনের প্রোগ্রামে আমার ডাক থাকে। আমি নিজেও এসব পরিবেশে গান করতে পছন্দ করি।’

নতুনরা গানে সরব থাকলেও সিনিয়র শিল্পীদের বেলায় গানে তেমন একটা দেখা যায় না। এর কারণ হিসেবে ন্যান্সি বলেন, এটা এখন নয়, সব সময়ই নতুনদের কাজে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে। ভবিষ্যতেও তাই হবে। তাদের মধ্যে এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন থাকে। তাই উঠেপড়ে লেগে যায়। কিন্তু এখন সিনিয়র শিল্পীদের গান খুব বেশি প্রকাশ হচ্ছে না। বিভিন্ন প্রোগ্রামেও ততটা থাকছেন না। টেলিভিশন-মঞ্চেও তারা অনুপস্থিত। এর কারণ হচ্ছে একজন ভালো মানের শিল্পীকে আনতে গেলে যে সম্মানী দেওয়া দরকার, তা আয়োজকদের পক্ষে সম্ভব হয়ে উঠছে না। এতে করে আয়োজক কিংবা প্রডিওসারদেরও কিছু করার থাকে না। কারণ, বাজেট কম। আবার অনেক ক্ষেত্রে চ্যানেল কর্তৃপক্ষও অপারগ। তারা স্পন্সর পাচ্ছে না। কিন্তু নতুন একজন শিল্পীর বেলায় সেই ঝামেলা নেই। তারা অল্প টাকায় কাজ করছেন। অনেক শিল্পী তা-ও পান না। বিনে পয়সার কাজ করেন।’

ন্যান্সি আরও বলেন, ‘আমি জুনিয়র নই। আবার ততটা সিনিয়রও না। ক্যারিয়ারে আমার ১৫ বছর। এই অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি, এখন গানের সময় ভালো যাচ্ছে না। গত কয়েক বছরে শ্রোতাদের মনে জায়গা করে নিয়েছে এমন কোনো গান হয়েছে বলে আমার মনে হয় না। মৌলিক গানের অভাব। ফিউশন হচ্ছে অনেক। কখনো কখনো ফিউশনের নামে আসল গানের সৌন্দর্য নষ্ট করে ফেলা হচ্ছে। অন্যদিকে চলচ্চিত্রের অবস্থা ভালো না। গত বছর একেবারে কম ছবি মুক্তি পেয়েছে। তাই চলচ্চিত্রে তেমন গানও নেই।’

সূত্রঃ বাংলাদেশের খবর