কোভিড ১৯ চিকিৎসায় কুলাউড়া হাসপাতালে অত্যাধুনিক অক্সিজেন কনসেনটেটরসহ মেডিকেল ইকুইপমেন্ট প্রদানকুলাউড়া হাসপাতালে অত্যাধুনিক অক্সিজেন কনসেনটেটরসহ মেডিকেল ইকুইপমেন্ট প্রদান

আব্দুল কুদ্দুস আব্দুল কুদ্দুস

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৪:২৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৬, ২০২০
কোভিড ১৯ পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের জন্য মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অত্যাধুনিক অক্সিজেন কনসেনটেটরসহ মেডিকেল চিকিৎসা সামগ্রী ও টেলিমেডিসিন সেবার জন্য ল্যাপটপসহ ইন্সট্রুমেন্ট হস্তান্তর করা হয়েছে। দেশের প্রখ্যাত চিকিৎসক ও সিলেট হার্ট ফাউন্ডেশন এবং সিলেট ডায়বেটিক হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি প্রয়াত ডা. মো. আব্দুর রকিবের সন্তান তানবীর রকিবের অর্থায়নে এবং মেজর (অব.) নুরুল মান্নান চৌধুরীর তত্বাবধানে এসব অক্সিজেন কনসেনটেটরসহ মেডিকেল চিকিৎসা সামগ্রী প্রদান করা হয়।
বুধবার বেলা ১২টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হলরুমে হাজিপুর সোসাইটির আয়োজনে হস্তান্তর অনুষ্ঠানে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুরুল হকের সভাপতিত্বে এবং হাজিপুর সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মিজানুর রহমান ও সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম তালুকদারের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও বিসিবির পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম ফরহাদ চৌধুরী, সাপ্তাহিক কুলাউড়ার সংলাপ পত্রিকার সম্পাদক অধ্যক্ষ সিপার উদ্দিন আহমদ, হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. জাকির হোসেন, সাংবাদিক সমিতি কুলাউড়া ইউনিটের সভাপতি মোক্তাদির হোসেন, সাপ্তাহিক সীমান্তের ডাকের বার্তা সম্পাদক এস আলম সুমন, দৈনিক কালের কন্ঠের কুলাউড়া প্রতিনিধি মাহফুজ শাকিল। 
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. প্রদীপ চৌধুরী, ডা. নাদিয়া শারমিন, ডা. ফয়সাল আহমদ, ডা. সাকিয়া রিজওয়ানা, ডা. সুরভী সেন, ডা. নাজমুস সিয়ান রাফি, ডেন্টাল সার্জন তাপস দেবনাথ, উপজেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর জসীম উদ্দিন, গুড হিল ট্রাস্টের হিসাব নির্বাহী মো. জায়েদ খাঁন, ব্যবস্থাপক মোক্তার হোসেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স নাজমা বেগম, আফিয়া বেগম, মেডিকেল বাড়ে প্রমুখ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথিসহ অতিথিরা ডা. নুরুল হকের কাছে এসব মেডিকেল সামগ্রী তুলে দেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল বলেন, বাংলাদেশ সরকার ও মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের জনগণকে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে প্রশংসনীয় কাজ করে যাচ্ছেন। যার ফলে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যার তুলনায় মৃত্যুর হার অনেক কম ও ইতোমধ্যে অধিকাংশ করোনা আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়ে ওঠেছেন। এছাড়াও এর পেছেনে ভূমিকা ডাক্তার, প্রশাসনের সকল স্তরের কর্মকর্তা, পুলিশ ও জনপ্রতিনিধিদের। বর্তমান করোনা বিপর্যয়ে মানুষকে চিকিৎসা দিতে চিকিৎসকরা সর্বোচ্চ ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও নিজেরা দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়াও প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা সংক্রমণ ঝুঁকি রোধে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর তহবিল থেকে করোনা কালে কর্মহীন হয়ে পড়া অনেক মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত মানুষকে নগদ আর্থিক সহযোগিতা এবং প্রণোদনা প্রদান করা হয়েছে। আরো আর্থিক সহযোগিতা এবং প্রণোদনা কার্যক্রম অব্যাহত আছে।
তিনি বলেন, দেশের প্রখ্যাত চিকিৎসক প্রয়াত ডা. আব্দুর রকিব, ডা.খালিক, ডা. এরশাদ আলী সিলেটের চিকিৎসা ব্যবস্থা উন্নতিকরণে কাজ করে গেছেন। উনাদের প্রচেষ্টায় সিলেট হার্ট ফাউন্ডেশন ও সিলেট ডায়াবেটিক হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় প্রয়াত ডা. মো. আব্দুর রকিবের সন্তান তানবীর রকিব করোনা সংকটে মানুষের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে বেশ কয়েকটি হাসপাতালে আধুনিক মেডিকেল ইকুইপমেন্ট প্রদান করছেন। জেলার মধ্যে কুলাউড়া হাসপাতালে অত্যাধুনিক এসব মেডিকেল ইকুইপমেন্ট প্রদান করা হয়েছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুরুল হক বলেন, করোনাকালে মানুষের স্বাস্থ্যসেবায় এসব মেডিকেল ইকুইপমেন্ট খুবই জরুরী। আমাদের হাসপাতালে যে অক্সিজেন কনসেনটেটর দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে একটি কনসেনটেটর প্রতি মিনিটে ১০ লিটার অক্সিজেন সরবরাহ করতে পারে। মারাত্মক শ্বাসকষ্টজনিত ও শরীরে অক্সিজেন ঘাটতি নিয়ে আসা রোগীরা এর মাধ্যমে ভালো সাপোর্ট পাবেন। প্রসঙ্গত, ১০ লিটার অক্সিজেন সরবরাহ ক্ষমতাসম্পন্ন অক্সিজেন কনসেনটেটর একটি, ৯ লিটার অক্সিজেন সরবরাহ ক্ষমতাসম্পন্ন অক্সিজেন কনসেনটেটর একটি, ৩ টি অক্সিমিটার,১ টি ডিজিটাল প্রেসার মেশিন, টেলিমেডিসিন সেবার জন্য রাউটার ও আনুষাঙ্গিক যন্ত্রাংশসহ একটি ল্যাপটপ, ৩টি ভল্টেজ স্ট্যাবিলাইজার প্রদান করা হয়।